মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

প্রকল্প

ক্রঃ নং

প্রকল্পের নাম

বাস্তবায়িত উপজেলার সংখ্যা

প্রকল্পের উদ্দেশ্য

কার্যক্রম

1.    

চাষী পর্যায়ে আধুনিক জাতের ধান, গম ও পাট বীজ উrপাদন ও সম্প্রসারণ প্রকল্প।

১৩ টি উপজেলা

 

১. উচ্চফলনশীল বীজের ঘাটতি পূরনে মান সম্মত বীজ উrপাদন বৃদ্ধি।

২. গবেষণা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সর্বশেষ ছাড়কৃত ধান, গম ও পাটের উন্নত জাতের সম্প্রসারণ।

৩. অধিক হারে উন্নত মানের বীজ উrপাদনকারী কৃষক সৃষ্টি করা।

৪. বীজ প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বাজারজাতকরণে মহিলাদের অংশ গ্রহণ বৃদ্ধি করে দারিদ্র বিমোচনে সহায়তা করা।

৫. পরিবেশের ভারসাম্য সংরক্ষণের জন্য সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার ব্যাপক সম্প্রসারণ করে বিষাক্ত কীটনাশকের ব্যবহার কাঙ্খিত পর্যায়ে নামিয়ে আনা।

৬. মান সম্মত বীজ উrপাদনে কৃষকদেরকে দক্ষ করে গড়ে তোলা।

প্রদর্শনী, প্রশিক্ষণ ও মাঠ দিবস

2.    

চাষী পর্যায়ে আধুনিক জাতের ডাল, তেল ও পেঁয়াজ বীজ উrপাদন ও সম্প্রসারণ প্রকল্প।

১১ টি উপজেলা

 

 

 

 

 

 

 

১. এই প্রকল্পের প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে ডাল, তেল ও পেঁয়াজ বীজ উrপাদন বৃদ্ধি করতঃ চাষী পর্যায়ে উন্নত মানের বীজ ব্যবহার নিশ্চিত করা।

২. মান সম্মত ডাল, তেল এবং পেঁয়াজ বীজ উrপাদন করতঃ বীজের ঘাঠতি পূরণ করা।

৩. হেক্টর প্রতি উrপাদন বৃদ্ধি করা।

 

৪. ডাল, তেল ও পেঁয়াজ বীজ আমদানী বন্ধ করতঃ বৈদেশিক মূদ্রার ব্যয় কমানো।

৫. মহিলাদের অংশ গ্রহণের মাধ্যমে বীজ উrপাদন, সংরক্ষণ ও বিক্রয়ের মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচন করা।

৬. বৃহত পরিসরে মান সম্মত বীজ উrপাদনকারী চাষীর সংখ্যা বৃদ্ধি করা।

প্রদর্শনী, প্রশিক্ষণ ও মাঠ দিবস

3.   

ন্যাশনাল এগ্রিকালচার টেকনোজী প্রজেক্ট (NATP)

৪ টি উপজেলা

১. কৃষির উrপাদনশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কৃষি প্রযুক্তি ব্যবস্থা শক্তিশালীকরণ এবঙ গবেষণা ও সম্পসারণ কার্যক্রমের মধ্যে যোগসূত্র সুদৃঢ়করণ।

২. ফসল, মrস্য ও পশুপালন কার্যক্রমে ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকদেরCommon Interest Group (CIG)গঠনের মাধ্যমে তাদের সমস্যা চিহ্নিত করে নীতি নির্ধারণ পর্যায়ে প্রতিফলন।

৩. উচ্চ মূল্য সম্পন্ন পণ্যের সংগ্রহোত্তর মূল্য সংযোজন ও বাজার ব্যবস্থার উন্নয়নের মাধ্যমে কৃষকের আয় বৃদ্ধি।

প্রদর্শনী, প্রশিক্ষণ, মাঠ দিবস, কৃষি মেলা ও ভ্রমন।

4.    

ধান ফসলের ফলন পার্থক্য কমানো প্রকল্প (RYG)।

৩ টি উপজেলা

১. আধুনিক চাষাবাদের উপর প্রশিক্ষণ ও প্রদর্শনীর মাধ্যমে ধানের কাঙ্খিত ফলন অর্জন তথা ফলন ব্যবধান কমানো।

২. ধানের ফলন পার্থক্যের জন্য দায়ী জৈব, অজৈব এবং আর্থ সামাজিক কারণ সমূহ চিহ্নিতকরণ ও উন্নত জাতের মান সম্মত ধান বীজের যোগান দেয়া।

৩. মাটি পরীক্ষার ভিত্তিতে সার ব্যবহারের মাধ্যমে মাটির স্বাস্থ্য/উর্বরতা রক্ষা করা ।

প্রদর্শনী, প্রশিক্ষণ ও মাঠ দিবস

5.   

খামার যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে ফসল উrপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প।

১৩ টি উপজেলা

 

১. আধূনিক কৃষি যন্ত্রপাতির ব্যবহার কৃষকের নিকট সহজলভ্য করার জন্য ২৫% ভর্তূকীতে যন্ত্র বিতরণ

২. আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে ফসল উrপাদন বৃদ্ধিতে সহায়তা করা।

 

 

প্রদর্শনী, প্রশিক্ষণ ও মাঠ দিবস

6.    

সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনা (IPM)

৬ টি উপজেলা

১. পরিবেশ ও জনস্বাস্থের কোনরুপ ক্ষতি না করে স্থায়ী ভাবে খাদ্যে স্বয়ংসম্পুর্ণতা অর্জন করা।

২. ক্ষুদ্র কৃষকের উrপাদন ও আয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করা।

৩. কৃষক মাঠ স্কুল পদ্ধতিতে কৃষক প্রশিক্ষণ এবং আইপিএম ক্লাব স্থাপনের মাধ্যমে সমান্বত বালাই ব্যবস্থাপনা তথা সমন্বিত ফসল উrপাদন (বীজ উrপাদন থেকে বীজ সংরক্ষণ পর্যন্ত) কার্যক্রম জোরদার করা।

৪. প্রকল্পের কার্যক্রম সকল বাংলাদেশে সম্প্রসারণের মাধ্যমে পরিবেশ বান্ধব পদ্ধতিতে ফসল উrপাদনের ধারা অব্যাহত রাখা।

৫. কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের জনবল উন্নয়ন করে প্রকল্পের কাজ ত্বরান্বিত করা।

৬. জৈব কৃষি ও জৈবিক বালাইব্যবস্থাপনা কাযর্ক্রম জোরদারকরণের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসম্মত সবজী ও ফল উrপাদন করা।

৭. ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার মাধ্যমে আইপিএম বিষয়ে কৃষকদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করা।

কৃষক মাঠ স্কুল, মাঠ দিবস, আইপিএম ক্লাব

7.   

সমন্বিত ফসল ব্যবস্থাপনা (ICM)

৩ টি উপজেলা

১. পরিবেশ ও জনস্বাস্থের কোনরুপ ক্ষতি না করে স্থায়ী ভাবে খাদ্যে স্বয়ংসম্পুর্ণতা অর্জন করা।

২. ক্ষুদ্র কৃষকের উrপাদন ও আয় বৃদ্ধিতে সহায়তা করা।

৩. কৃষক মাঠ স্কুল পদ্ধতিতে কৃষক প্রশিক্ষণ এবং আইপিএম ক্লাব স্থাপনের মাধ্যমে সমান্বত বালাই ব্যবস্থাপনা তথা সমন্বিত ফসল উrপাদন (বীজ উrপাদন থেকে বীজ সংরক্ষণ পর্যন্ত) কার্যক্রম জোরদার করা।

 

৪. প্রকল্পের কার্যক্রম সকল বাংলাদেশে সম্প্রসারণের মাধ্যমে পরিবেশ বান্ধব পদ্ধতিতে ফসল উrপাদনের ধারা অব্যাহত রাখা।

৫. কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের জনবল উন্নয়ন করে প্রকল্পের কাজ ত্বরান্বিত করা।

৬. জৈব কৃষি ও জৈবিক বালাইব্যবস্থাপনা কাযর্ক্রম জোরদারকরণের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসম্মত সবজী ও ফল উrপাদন করা।

৭. ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার মাধ্যমে আইপিএম বিষয়ে কৃষকদের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করা।

কৃষককে হাতে কলমে ফসল উrপাদনে প্রশিক্ষণ, প্রদর্শনী, কৃষক মাঠ স্কুল, আইসিএম ক্লাব ও মাঠ দিবস।